রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ০২:১৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ক্রীড়া শিক্ষার্থীদের মন ও শরীর দুটোই ভালো রাখে                           -ভূমিমন্ত্রী নাটুয়ারপাড়া গনসংযোগে ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী সেলিম রেজা সাতক্ষীরার কালিগঞ্জে সাংবাদিকের নামে মি*থ্যা মা*ম*লা দিয়ে হ*য়*রা*নির প্রতি*বাদে সংবাদ সম্মেলন শিবালয়ে পূজা উদ্যাপন পরিষদের বর্ধিত সভা আরজেএফ ভাষাসৈনিক আব্দুল মতিন স্মৃতিপদক পেলেন নুর কামাল সংস্কৃতির বিভিন্ন শাখায় আঁখি-ফেরদৌস জুটি শ্রীপুর উপজেলা হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভায় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জলঢাকায় তিন রাউন্ড গু*লি*সহ একটি রি*ভ*ল*বার উ*দ্ধা*র পাইকগাছায় সূর্যমুখী ফুল চাষে কৃষকদের মুখে হাসি ঢাকা জেলা মোটরযান ওয়ার্কশপ মেকানিক শ্রমিকদের বার্ষিক বনভোজন উদযাপন। র‌্যাবের ডিজি মতে বেইলী রোডের আগুনের সূত্রপাত বিল্ডিং এর নিচতলা থেকে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী আতাউরের মৃত্যু উপকূলয়ীয় অঞ্চল পাইকগাছায় বুলেট মরিচের বাম্পার ফলন কাজীপুরে গাছে গাছে শোভা পাচ্ছে আমের সোনালী মুকুল সিরাজগঞ্জের কাজীপুরে বেপরোয়া ইজিবাইক ও অটোরিকশা চালকরা বাড়ছে দুর্ঘটনা কাচ্চি ভাই রেস্টুরেন্টে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৪৫ জনের মৃত্যু জলঢাকা থানার ভিতরে পতিত জমিতে সবজি চাষ। ৩০শে ফেব্রুয়ারি’ যে দিনটি ইতিহাসে মাত্র একবারই এসেছিল কলাবাগানে আ*গু*নে পো*ড়া নারীর লা*শ উ*দ্ধা*র উপকূলের লবনাক্ত মৎস্য ঘেরে বিনা চাষে সরিষার ফলন ভালো হয়েছে

পলাশবাড়ীতে অবশেষে সেই ইউপি সদস্যের স্বামীকে দেওয়া ঘর ভেঙ্গে দেওয়া হলো আরেকটি পরিবারকে

Visits: 5

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল,গাইবান্ধাঃগাইবান্ধা জেলা পলাশবাড়ী উপজেলার জমি আছে ঘর নাই প্রকল্পের অনিয়মের চিত্র আর গল্প বা কাহিনী নয় বাস্তবতা। প্রকল্পের শুরুতেই উপজেলার বেশ কয়েকটি ইউনিয়নের সাধারণ মানুষের কাছে জাতীয় পরিচয় পত্র, ছবি ও টাকা নেয় একটি চক্র। এরপর গত অর্থ বছরে উপজেলায় জমি আছে ঘর নাই প্রকল্পে ১ লক্ষ টাকা করে ব্যয়ে ১৮৪ টি ঘরের বরাদ্দ পাওয়া যায়। বর্তমানে এ প্রকল্পে প্রাপ্ত বরাদ্দের কাজ চলমান রয়েছে। প্রকল্পের কাজ শুরু আগেই যদিও এসব প্রকল্পের বরাদ্দকৃত অর্থ উত্তোলন করে উপজেলা প্রশাসন। এসব অর্থ উত্তোলনেও বিষয়ে নানা জল্পনা কল্পনা শুরু হলেও অবশেষে কিছু কিছু প্রকল্পের কাজ শেষ হলেও এখনো অনেক গুলো ঘর নির্মাণের কাজ চলমনা রয়েছে। যদি ব্যয়ের অর্থের অর্ধেক অর্থ ব্যবহারের মাধ্যমে দায়সারা ঘর নির্মাণ করা হলেও এ অর্থের বাকি অংশ বিশেষ কৌশলে পকেটস্থ করছে উপজেলা প্রশাসন মনোনীত একটি চক্র।
এছাড়াও দুর্যোগ সহনীয় ঘরের জন্য দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রান মন্ত্রনালয় হতে ২ লক্ষ ৫৮ হাজার টাকা করে ব্যয়ে ৩৯ টি ঘর বরাদ্দ পাওয়া যায়। এসব প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে বলে উপজেলা ত্রান ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অফিস সূত্রে জানা যায় ।
উপজেলার ৯ টি ইউনিয়নের মাঝে বন্টন করা হয়েছে বলে উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়। এর মধ্যে উপজেলার পবনাপুর ইউনিয়নের ১,২, ও ৩ নং ওয়ার্ড সদস্যের স্বামীর নামে একটি এক লক্ষ টাকার ঘর প্রদান করা হয়। এঘর নির্মাণের পর এসব ঘর প্রদানে যে অনিয়ম দুর্নীতি করা হয়েছে সেটির প্রমাণ আংশিক হলেও মিলছে। উপজেলার বরাদ্দ প্রাপ্ত নির্মাণাধীন ঘর গুলো নিম্ন মানের সামগ্রী যেমন ব্যবহার করা হয়েছে তেমনি ঘর পাওয়ার উপযুক্ত ব্যক্তিরা বঞ্চিতও হয়েছে। পবনাপুর ইউনিয়নের ১২ টি পরিবারের মাঝে ১ লক্ষ টাকা করে ব্যয়ে ১২ টি ঘর এবং ৪ টি পরিবার কে দুর্যোগ সহনীয় ২ লক্ষ ৫৮ হাজার টাকা করে ব্যয়ে ৪ টি ঘর বরাদ্দ পাওয়া গিয়েছে বলে পবনাপুর ইউনিয়ন পরিষদ সূত্র জানা যায়।
ইউপি সদস্য পেলো জমি আছে ঘর নাই প্রকল্পের ঘর এসংক্রান্ত খবর বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশ হলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মেজবাউল হোসেন ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহ আলম সরকার ছোট বাবা আজ ২৬ নভেম্বর মঙ্গলবার সকালে উক্ত ইউপি সদস্যের স্বামীর নামে প্রাপ্ত ঘর ভেঙ্গে একই গ্রামের অন্য একটি পরিবার কে দেওয়া হয়। সে পরিবারটিও স্বাবলম্বি বটে।
উল্লেখ্য, উপজেলায় বরাদ্দ প্রাপ্ত এসব ঘর অসহায় দরিদ্র মানুষের স্থলে সুপারিশের ভিক্তিতে স্বাবলম্বী পরিবার গুলো পেয়েছেন ও ঘর নির্মাণে নিম্ন মানের সামগ্রী ব্যবহার করা হচ্ছে বলে দাবী সচেতন মানুষের।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Our Like Page আমাদের পেজ লাইক করুন
Raytahost Facebook Sharing Powered By : Raytahost.com