শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ০৮:১৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
স্ব-রাষ্ট্র মন্ত্রী ও আইনী সহায়তা কেন্দ্র আসক ফাউন্ডেশনের উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধিদের বৈঠক হিলিতেসব ধরনের মসলার দাম বেড়েছে। ফরিদপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আবারও আ’গু’ন! হিলিতে চারদিনে কাঁচা মরিচ কেজিতে ৮০ টাকা বেড়েছে পলাশবাড়ীতে নির্বাচনী আচরণ ল’ঙ্ঘ’নে’র দা’য়ে চেয়ারম্যানের স্ত্রী ফুটবল মার্কার প্রার্থীর জ’রি’মা’না হাতীবান্ধায় ৪১০ বোতল ফে’ন’সি’ডি’ল সহ আ’ট’ক ১ গোবিন্দগঞ্জে অ’প’হ’র’ণে’র পর ধ’র্ষ’ণ, ধ’র্ষ’ক আ’ট’ক মোরেলগঞ্জে ভ’য়া’ব’হ অ’গ্নি’কা’ণ্ডে ১২টি দোকান পু’ড়ে ছা’ই, কোটি টাকার ক্ষ’তি ব্যবসায়ীদের দূর্জকে প্রচারণা বন্ধের নির্দেশ নির্বাচন কমিশন। উপজেলা প্রেসক্লাব উখিয়া’র ৪ পদে উপ নির্বাচন সম্পন্ন রাজশাহীতে দীর্ঘদিন দখলে থাকা তিনটি খাস পুকুর উন্মুক্ত রাজশাহীতে স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণ শীর্ষক আলোচনা সভা রাজশাহীর ডিবি পুলিশ কর্তৃক ১০০ গ্রাম হে’রো’ইন, ২০ বোতল ফে’ন্সি’ডি’ল ও ২০০ পিছ ই’য়া’বা-সহ গ্রে’ফ’তা’র: ১ নাগেশ্বরীতে এবার ধানের বাম্পার ফলন ডিমলায় আ’গু’নে পুড়ে বসতঘর ছাই, ক্ষয়ক্ষ’তি ২০ লাখ। শ্রীপুরে এসএসসি পরীক্ষায় অকৃতকার্য হয়ে নিখোঁজের একদিন পর হাসপাতাল থেকে ম’র’দে’হ উ’দ্ধা’র উত্তরায় ড্রাইভওয়ে অবমুক্ত করে ট্রাফিক উত্তরা পশ্চিম জোন স্কুল ড্রেস না পড়ায় শিক্ষার্থীকে বে’ধ’ড়’ক মা’র’ধ’রের অ’ভি’যো’গ প্রধান শিক্ষকের বি’রু’দ্ধে এমভি আব্দুল্লাহর নাবিকরা স্বজনদের কাছে ফিরছেন আজ আবারও ফিরে এলো তাপপ্রবাহ, থাকতে পারে ১৮ মে পর্যন্ত
সাহেব-দিল্লি পর্যন্ত যাওয়ার পয়সা নেই, দয়া করে ডাকযোগে পুরস্কার পাঠিয়ে দিন!

তৃতীয় শ্রেণী পর্যন্ত লিখাপড়া করে ভারতের সর্বোচ্চ পদক পদ্মশ্রী পদক

Views: 5

তৃতীয় শ্রেণী পর্যন্ত লিখাপড়া করে ভারতের সর্বোচ্চ পদক পদ্মশ্রী পদক লাভ এমনকি তার লিখা বই বিশ্ববিদ্যালয় সিলেবাসেও অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

সাহেব-দিল্লি পর্যন্ত যাওয়ার পয়সা নেই, দয়া করে ডাকযোগে পুরস্কার পাঠিয়ে দিন!

হলধর নাগ , যার নামের আগে কখনও শ্রী লাগেনি, খান তিনেক জামা, একটি ছেঁড়া রাবার চপ্পল, একটা অ-খিলানযুক্ত চশমা এবং ৭৩২ টাকার জমা মূলধনের মালিক…..আজ পদ্মশ্রী ঘোষিত

ইনি হলেন পশ্চিম উড়িশ্যার বাসিন্দা হলধর নাগ।

যিনি কোসলি ভাষার বিখ্যাত কবি। ভাবার বিষয় হল, তিনি এখন পর্যন্ত যতগুলো কবিতা ও ২০টি মহাকাব্য রচনা করেছেন, তার সবগুলোই তার জিহ্বার ডগায় । এবার তাঁর লেখা ‘হলধর গ্রন্থাবলী-২’-এর একটি সংকলন সম্বলপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে সিলেবাসের অংশ করা হবে।

সাদা পোশাক, সাদা ধুতি, গামছা ও গেঞ্জি পরিহিত হলধর নাগ বেশিরভাগ সময় খালি পায়েই থাকেন। উড়িশ্যার লোক-কবি হলধর নাগ একটি দরিদ্র পরিবারের মানুষ। ১০ বছর বয়সে বাবা-মায়ের মৃত্যুর পর তৃতীয় শ্রেণিতেই পড়া ছেড়ে দেন তিনি।

অনাথ জীবনে, তিনি বহু বছর ধরে ধাবায় বাসনপত্র পরিষ্কার করে কাটিয়েছেন।

পরে একটি স্কুলে রান্নাঘর দেখাশোনার কাজ পান তিনি। কয়েক বছর পরে ব্যাঙ্ক থেকে ১০০০ টাকা ঋণ নিয়ে পেন-পেনসিল ইত্যাদির একটি ছোট দোকান খোলেন সেই স্কুলের সামনেই ।

এটাই ছিল তার আর্থিক অবস্থা। এবার আসা যাক তাঁর সাহিত্যের বিশেষত্বে। ১৯৯৫ সালের দিকে হলধর স্থানীয় উড়িয়া ভাষায় “রাম-শবরী” র মতো কিছু ধর্মীয় পর্বের উপর লেখালেখি শুরু করেন এবং মানুষকে সেগুলো আবৃত্তি করে শোনাতে শুরু করেন।

আবেগে ভরপুর কবিতা লিখে মানুষের মধ্যে জোর করে উপস্থাপন করে তিনি এতটাই জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন যে, ২ বছর আগে রাষ্ট্রপতি তাকে সাহিত্যের জন্য পদ্মশ্রী দেন।

শুধু তাই নয়, ৫ জন গবেষক এখন তার সাহিত্যে পিএইচডি করছেন যেখানে হলধর নিজেই তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


Our Like Page আমাদের পেজ লাইক করুন
Raytahost Facebook Sharing Powered By : Raytahost.com